সেকেলে নয় স্বকীয়তা

সেকেলে নয় স্বকীয়তা

হুজুরদের ব্যাপারে সমাজে বেশ প্রচলিত একটা কথা আছে তা হল, “হুজুররা সেকেলে“।

প্রথমেই বলে নিই এই কথাটা একজন চিন্তাশীল মানুষের কাছে নিতান্তই ভিত্তিহীন। এই কথার কোন ভিত্তি নেই। এক শ্রেণীর মানুষ আছে যারা হুজুরদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করতে কথাটা ব্যাবহার করে থাকে। আর যারা এই কথাটা বিশ্বাস করে তারা কিছু বিষয়ের দিকে তাকিয়ে বলে থাকে। যেমন, হুজুররা ঢিলা পায়জামা-পাঞ্জাবি পরিধান করে, দাড়ি রাখে, টাখনুর উপর পায়জামা পরে, আধুনিক এই যুগে ধর্ম নিয়েই পড়ে থাকে ইত্যাদি।

যারা এধরণের মনোভাব পোষণ করে তাদের কে শুধু একটা কথায় বলব, এটা “সেকেলে” নয় “স্বকীয়তা”। আজ থেকে দুইশত বছর পূর্বে হুজুররা পাঞ্জাবি পরত এখনো পরে। তারা সুন্নতি দাড়ি রাখত এখনো রাখে। টাখনুর উপর পায়জামা পরত এখনো পরে। যারা হজুরদেরকে সেকেলে বলে এরা বলতে পারবে না আজ থেকে ১০০ বছর আগে উনি যেই শ্রেণীর লোক সেই শ্রেণীর মানুষ তখন কি ধরণের পোশাক পরত? কেমন করে দাড়ি রাখত? নাকি রাখত না? টাখনুর নিচে পায়জামা পরত নাকি হাটুর উপর পরত?

আজকাল ফ্যাশনের অবস্থা তো এমন, যারা ঢোলা পায়জামা পরিধানকারীদের একসময় “গাইয়া” বলত তারা এখন প্রতিযোগিতায় নেমেছে কে কত ঢোলা পায়জামা পরতে পারে! এটাই এখন ফ্যাশন। যারা একসময় ঢোলা শার্ট পরিধানকারীদের নাক সিটকাত তারদের শার্ট এখন হাটুর নিচে চলে যায়!
যারা একসময় দাড়িওয়ালের মোল্লা বলত তারা এখন দাড়ি রেখে বড় শায়েখ হয়ে গেছে।
এই হল অবস্থা! তারা যুগের হাওয়ায় এতটাই নড়বড়ে যে, আজকে কি পরিধান করেছিল আগামীকাল আর তা বলতে পারবে না। কারণ, তাদের ভিতরে কোন স্বকীয়তা নেই। একদিন আমেরিকান তো আরেকদিন ইউরোপীয়ান। একদিন বৃটীশ তো আরেকদিন স্প্যানিশ।

কিন্তু হুজুররা? জুব্বা আর পাঞ্জাবি। কেউ কেউ টুকটাক পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেছে, তবে যেটা আসল সেটা আসল রয়েই গেছে।
যুগের হাওয়ায় না ভেসে নিজের স্বকীয়তা বজায় রাখা কতটা কঠিন তা বুঝতে হলে হুজুর হয়ে দেখতে হবে।

আবার অনেকেই বলে হুজুররা ব্রান্ড চেনেনা। আধুনিক জিনিসের প্রতি তাদের কোন আইডিয়া নেই।

এই কথা তো একেবারেই হাস্যকর। আমি তাদেরকে জিজ্ঞাসা করব, আপনাদের লাইনের ক’জন ব্রান্ড চেনে? তার থেকে বেশি ব্রান্ড চেনে হুজুররা। গাড়ি, ঘড়ি, মোবাইল, কাপড়সহ আরও অনেক জিনিস আছে যেসব জিনিসের মান আর ব্রান্ডের ব্যাপারে আধুনিক সময়ের মানুষের নাকের সামনে ছড়ি ঘুরানোর ক্ষমতা আছে।
আমিও মাঝে অবাক হয়ে যায় অনেক হুজুরছাত্রদেরকে দেখে, যাদের পাঞ্জাবির হাতার নিচে রাডো,ফসিল,রলেক্সের মত ব্রান্ডিং ঘড়ির ডায়াল চকচক করে। মোবাইল আর কাপড়ের কথা নাই বললাম।

সুতরাং যারা হুজুরদেরকে সেকেল ভাবেন তারা ভুলের মধ্যে ডুবে আছেন। ওটা সেকেলে নয় স্বকীয়তা। যা আপনি ধরে রাখতে পারেননি।