ভাপা পিঠা রেসিপি

ভাপা পিঠা রেসিপি

শীতকালের জনপ্রিয় খাবার হল ভাপা পিঠা। বানানোর রেসিপি শিখে নিতে পারলে রাস্তার পাশ থেকে ধুলোবালি পড়া পিঠা খেতে হবে না। ভাপা পিঠা তৈরির সহজ নিয়ম জেনে বাসায় তৈরি করুন স্বাস্থ্যকর মজাদার এই খাবার। বাংলাদেশে এলাকা অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন এবং আলাদা রকম পিঠা তৈরি হয়ে থাকে। গ্রামাঞ্চলে সাধারণত নতুন ধান উঠার পর থেকেই পিঠা তৈরির আয়োজন করা হয়। শীতের সময় পিঠার বাহারি উপস্থাপন ও আধিক্য দেখা যায়। তবে এসকল পিঠার মধ্যে ভাপা পিঠা নিঃসন্দেহে একটা গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে।

ভাপা পিঠা বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী পিঠা যা প্রধানত শীত মৌসুমে প্রস্তুত ও খাওয়া হয়। এটি প্রধানত চালের গুড়া দিয়ে জলীয় বাষ্পের আঁচে তৈরি করা হয়। মিষ্টি করার জন্য দেয়া হয় গুড়। স্বাদ বৃদ্ধির জন্য নারকেল দেয়া হয়। ঐতিহ্যগতভাবে এটি একটি গ্রামীণ পিঠা হলেও বিংশ শতকের শেষভাগে প্রধানত শহরে আসা গ্রামীন মানুষদের খাদ্য হিসাবে এটি শহরে বহুল প্রচলিত হয়েছে। রাস্তাঘাটে এমনকি রেস্তোরাতে আজকাল ভাঁপা পিঠা পাওয়া যায়।

বাচ্চাদের কাছে এই পিঠা খুব প্রিয়। অনেকে মজাদার এই পিঠা তৈরি করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন। হয়তো পিঠা ফুলে না বা শক্ত হয়ে যায়। তাই আজ ভাপা পিঠা কিভাবে বানাতে হয় জেনে নিন।

তবে ঘরে বসেই খুব সহজে কিভাবে ভাপা পিঠা বানাবেন আজ আমরা তা নিয়েই আলোচনা করবো ।

তৈরির উপকরণঃ

  1. চালের গুঁড়া ১ কেজি
  2. নারিকেল ১ টা ( কোরানো )
  3. খেজুরের গুঁড় কুচানো ( ২৫০ গ্রাম )
  4. লবণ ( পরিমাণমত )
  5. পানি ( পরিমাণমত )

অন্যান্য উপকরণঃ

  1. ১টি পাতিল / হাঁড়ি
  2. পাতিলের মুখে বসে এমন একটি ছিদ্রযুক্ত ঢাকনা
  3. পিঠা বানানোর জন্য ছোট গোল বাটি
  4. ছোট্ট ঢাকনা
  5. পরিষ্কার পাতলা নরম কাপড়ের টুকরা বাটি বাঁধার জন্য
  6. চালনি

প্রস্তুত প্রণালীঃ

  1. চালের গুঁড়িতে লবণ মিশিয়ে হালকা করে পানি ছিটিয়ে ঝুরঝুরে করে মেখে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, যেন দলা না বাঁধে।
  2. এবার চালনিতে চেলে নিন।
  3. কোরানো নারিকেলের অর্ধেকটা চেলে নেয়া চালের গুঁড়ার সাথে মাখতে হবে ।
  4. এইবার ভাপা পিঠা বানানোর হাঁড়ির অর্ধেকটা পানিতে ভরে জ্বাল দিয়ে পানি ফুটে ভাপ ওঠা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে । ভাপা পিঠার জন্য বাজারে বিশেষ এক ধরনের হাড়ি পাওয়া যায় , সেটিও ব্যবাহার করতে পারেন । এই হাঁড়িটির ঢাকনার ঠিক মাঝখানে একটা ফুটো থাকে । আটা দিয়ে ঢাকনির পাশ বন্ধ করে দিন যেন বাস্প পাশ দিয়ে বের যেতে না পারে এবং মাঝের ফুটো দিয়েই বের হয় ।
  5. এখন পিঠার জন্য ছোট বাটিতে এক ফোটা তেল মেখে কিছু মাখানো চালের গুঁড়া দিয়ে তার উপর গুঁড় ছিটিয়ে দিতে হবে । এবং এর উপর আবার চালের গুঁড়া দিয়ে ঢেকে দিতে হবে । আলতো হাতে চেপে সমান করে ভাপা পিঠার আকার তৈরি করে নিতে হবে ।
  6. এবার ছোট বাটিতে চালের গুড়া নিয়ে সেখানে পরিমান মত নারিকেল কুচি ও গুড় দিন। উপরে আবার চালের গুড়া দিয়ে ঢেকে দিন। বাটির মুখ পাতলা কাপড় দিয়ে ঢেকে বাটি উলটো করে ছিদ্র যুক্ত ঢাকনার উপর বসিয়ে দিন। বাটিটা আস্তে করে সরিয়ে নিতে হবে । খেয়াল করতে হবে যেন পিঠা ভেঙ্গে না যায় ।
  7. কাপড়ের প্রান্ত গুলি মুড়ে এক জায়গায় করে বড় ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে, যেন ভাপটা পিঠার গায়ে লাগে । ৫/৭ মিনিট ভাপে সেদ্ধ হলে ঢাকনা সরিয়ে আঙ্গুল দিয়ে চেপে দেখতে হবে নরম হয়েছে কিনা । নরম হলে বুঝতে হবে পিঠা পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত ।

এবার গরম গরম পরিবেশন করুন ভাপা পিঠা !